Breaking News
uttarancholnews24

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে লালপুরে যুবলীগ নেতাকে হত্যা : আটক ১

নিজস্ব প্রতিবেদক : নাটোরের লালপুর উপজেলার গোপালপুর সুগার মিলের ২ নং গেটের পশ্চিমে বাহাদিপুর লেবার লাইন এলাকায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক পক্ষ অপরপক্ষের এক যুবলীগ নেতার দুই হাত-পা ও মাথায় কুপিয়ে হত্যা করেছে।  আজ বুধবার (২৮ নভেম্বর) বেলা ১১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অবস্থান নিয়েছে। এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।  
লালপুর থানা, দলীয় সূত্র ও তিনজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, বুধবার (২৮ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে উপজেলার বাহাদিপুরে নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলের ফটকের সামনে উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহারুল ইসলাম (৩৮) দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় যুবলীগের তাঁরই প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ সমর্থিত গোপালপুর পৌরসভার কমিশনার মাসুদ রানা, যুবলীগ কর্মী মঞ্জুসহ ১০ থেকে ১২ জন ধারালো অস্ত্র নিয়ে তাঁর ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।হামলাকারিরা তাঁর দুই হাত ও দুই পায়ের রগ কেটে দেয়। একই সাথে তাঁর মাথায় একাধিক কোপ দেয়। হামলাকারিরা তাঁকে মূমূর্ষ অবস্থায় ফেলে রেখে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে লালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

লালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক মজিবুল হক সবুজ জানান, জাহারুলের শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। তাঁর অবস্থা সঙ্কটজনক। দুই হাত ও পায়ের রগ কেটে গেছে। অস্ত্রপোচারের প্রয়োজন হওয়ায় তাঁকে রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 
তাঁকে বহনকারি অ্যাম্বুলেন্সের চালক জহুরুল ইসলাম জানান, জাহারুলকে নিয়ে তাঁরা রামেক হাসপাতালে পৌঁছালে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করেন।  নিহত জাহারুলের ছোট ভাই রেজাউল করিম ও বন্ধু উজ্জল মারা যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চত করেন।এছাড়া একই ঘটনায় জাহারুল গ্রুপের সমর্থক বাওড়া এলাকার বাবলু হোসেনের ছেলে প্রান্ত ও বিরোপাড়া গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে তুহিন গুরুতর আহতাবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।  
লালপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলাল  হোসেন জানান, উভয়পক্ষ যুবলীগের নেতা-কর্মী। দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, পুকুর দখল ও সুগার মিলের টেন্ডার নিয়ে তাঁদের মধ্যে গোলমাল চলে আসছিল। এর জের ধরে পূর্বে কয়েকবার মারপিটের ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় লালপুর ‍উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ফিরোজ আল হক ভূইয়াকে থানায় নিয়ে এসেছে পুলিশ।

এ ঘটনার পর অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছে। তাঁদের মুঠোফোন বন্ধ। 
লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল জানান, ঘটনাটি শোনার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। পূর্ব বিরোধের জের ধরে ঘটনাটি ঘটতে পারে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নিবো। ফিরোজ আল হক ভূইয়ার ব্যাপারে জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার জন্য ও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।