Breaking News

জনপ্রিয় হচ্ছে ভাসমান সবজি চাষ

কুড়িগ্রাম সংবাদদাতা : জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ভাসমান সবজি চাষ। ভাসমান বেডের ওপর লালশাক, পুঁইশাক, কলমি শাক, করলা, বরবটি, ঢ্যাঁড়শ ও লাউ চাষ করেছেন তারা। দেখলে মনে হবে শাকসবজির ভেলা ভাসছে। সম্পূর্ণ অর্গানিক ভাসমান পদ্ধতিতে শাকসবজি চাষাবাদ করে লাভবানও হচ্ছেন অনেক কৃষক।

উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নে হিজলী গোফপাড়া এলাকায় এক সময়ের প্রমত্তা দুধকুমার নদ মরা খালে পরিণত হয়েছে। বছরের বেশির ভাগ সময় সেখানে জলাবদ্ধতা লেখে থাকে। ফলে কোনো কাজই আসত না নদীটি। কিন্তু কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী অর্গানিক পদ্ধতিতে এসব জায়গায় ভাসমান বেডে সবজি চাষ শুরু করেছেন স্থানীয় কয়েকজন কৃষক। অল্প সময়ের মধ্যে ভাসমান বেডে সবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছেন তারা। এছাড়াও উপজেলার দড়িকিশোরপুর, থেতরাই, গোড়াইপিয়ার, ধরণীবাড়িসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় ভাসমান সবজি চাষ করা হচ্ছে। এ পদ্ধতিতে স্বল্প জায়গায় কম খরচে চাষাবাদ করে অধিক ফসল উত্পাদন করে বেশি লাভ হওয়ায় স্থানীয় কৃষকদের মধ্যে বেশ আগ্রহও বেড়েছে।

কৃষক আজম আলী, রফিকুল ইসলাম, আয়নাল হক, নূর আমিন, শাহেনা বেগম, মাহমুদা বেগমসহ কয়েকজন জানান, দুধকুমার নদে সারা বছরই পানি জমে থাকে। এসব জলামগ্ন জমিতে কচুরিপানা ও অন্যান্য জলজ উদ্ভিদ দিয়ে বিশেষ করে বিজ্ঞানসম্মত নিয়মে প্রয়োজনীয় মাপের ভেলার মতো বেড তৈরি করেন। পরে ভাসমান পদ্ধতিতে বছরব্যাপী বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি অনায়াসে উত্পাদন করা হয়। বন্যা ও জলাবদ্ধ এলাকাগুলোতে জলবায়ু পরিবর্তনের কৌশল হিসেবে ভাসমান বেডে এ কার্যক্রম সমপ্রসারিত হচ্ছে। ফলে দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে ভাসমান বেডে সবজি চাষ। তারা আরো বলেন, কৃষি বিভাগের পরামর্শে গত কয়েক বছর ধরে ভাসমান বেডে বিভিন্ন শাকসবজি চাষ করে আসছেন। প্রয়োজনমতো নিজের বাগানের টাটকা সবজিতে পরিবারের পুষ্টি চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি, উত্পাদিত সবজি বিক্রি করে লাভবানও হচ্ছেন তারা।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষ গবেষণা, সম্প্রসারণ ও জনপ্রিয়করণ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ছয়টি প্রদর্শনী ছাড়াও কৃষক উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে ভাসমান বেডে সবজি চাষ করা হচ্ছে। জলাশয়ে কচুরিপানা ও আগাছা ব্যবহার করে তৈরি বেডে সম্পূর্ণ জৈবিক পদ্ধতিতে সবজি চাষ করা হয়।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, ভাসমান বেডে সবজি চাষে দিন দিন কৃষকরা আগ্রহী হচ্ছেন। এতে কৃষকরা সবজির উচ্চমূল্য পাওয়ার পাশাপাশি স্থানীয়ভাবে পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম হচ্ছে। আগামীতে এ উপজেলায় ভাসমান বেডে সবজি চাষ আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠবে ।